মহিলা কলেজের পিকনিক বাসে ছাত্রলীগের হামলা

0
161

বরিশাল: বরিশাল সরকারি মহিলা কলেজের পিকনিক বাসে হামলা চালিয়েছে বিএম কলেজ ছাত্রলীগের কিছু নেতাকর্মী। বিএম কলেজের ছাত্র সংসদ বাকসুর জিএস নাহিদ সেরনিয়াবাতের অনুসারী ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা এ সময় বাসের জানালা ভাংচুর, ড্রাইভারকে মারধর, মোবাইল ফোনসেট ও টাকা লুট এবং ছাত্রীদের লাঞ্ছিত করে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এমনকি কলেজের অধ্যক্ষের সঙ্গেও দুর্ব্যবহার করে তারা। শুক্রবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে ঝাউতলা গলির সামনে হাসপাতাল রোডে এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছে, বিএম কলেজ ছাত্রলীগের যুগ্মআহ্বায়ক বাকসুর জিএম নাহিদ সেরনিয়াবাত ও ক্রীড়া সম্পাদক ফয়সাল আহমেদ মুন্নার অনুসারী ছাত্রলীগ কর্মীরা রাত সাড়ে ৯টার দিকে জেলেবাড়ী সংলগ্ন ক্যাফে আম্মাজান হোটেলে খাবার নিতে আসে। এ সময় হোটেলের সামনে তাদের এফজেড মোটরসাইকেলসহ দুটি মোটরসাইকেল রাখা ছিল। তখন মহিলা কলেজের একটি পিকনিক বাস সেখানে এসে পার্ক করতে গেলে ওই মোটরসাইকেল দুটি ধাক্কা খেয়ে পড়ে যায়। এই ঘটনায় ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের কয়েকজন বাসে উঠে ড্রাইভারকে মারধর করতে গেলে ড্রাইভার দ্রুত গতিতে বাস চালানো শুরু করে। যার ফলে গাড়ির নিচে পড়ে এফজেড মোটরসাইকেলটি ভেঙে যায়। এতে অন্য নেতাকর্মীরা ক্ষিপ্ত হয়ে ধাওয়া করে বাসটিতে হামলা চালায়। তারা বাসের জানালার কাচ ভাংচুর, ড্রাইভারকে মারধর করে মোবাইল ফোনসেট ও টাকা ছিনতাই, শিক্ষক ও ছাত্রীদের লাঞ্ছিত করে। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি শান্ত করে।

বরিশাল সরকারি মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর একেএম এনায়েত হোসেন জানান, শুক্রবার সকালে অনার্স ও মাস্টার্সের ৪২/৪৩ শিক্ষার্থীকে নিয়ে ইয়াছিন পরিবহনের একটি বাসযোগে যশোরে কবি মধুসূদন দত্তের বাড়িতে যান পিকনিকে। সেখান থেকে বরিশাল ফিরতে রাত হয়ে যায়। বরিশালে বাস প্রবেশের পর থেকেই ছাত্রীদের তাদের বাড়ি সংলগ্ন এলাকায় নামিয়ে দেয়া হয়। এরই ধারাবাহিকতায় জেলেবাড়ীর পোল সংলগ্ন এলাকায় কয়েকজন ছাত্রীকে নামিয়ে দেয়া হয়। এ সময় কিছু বুঝে ওঠার আগেই বেশ কয়েকজন ছেলে বাসে উঠে হুমকি-ধামকি দেয়। তাদের নামিয়ে বাস চালানো শুরু করলে তারা আরও দলবল নিয়ে ধাওয়া করে বাস থামিয়ে ড্রাইভারের ওপর হামলা চালায় এবং বাসের চাবি, ড্রাইভারের দুটি মোবাইল ফোনসেট ও টাকা নিয়ে যায়। এ সময় বাসে অন্য শিক্ষক ও ৩০-৩২ জন ছাত্রী ছিল। পরে পুলিশ এসে চাবি উদ্ধার করলেও মোবাইল ফোনসেট ও টাকা উদ্ধার করতে পারেনি।

বরিশাল বাস মালিক সমিতির সভাপতি মহানগর শ্রমিক লীগের সভাপতি আফতাব হোসেন জানান, এটা সাধারণ কোনো হামলার ঘটনা নয়। ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। তারা বাসের চালককে মারধর করে টাকা ও মোবাইল ফোনসেট লুট করেছে। এই ঘটনায় বাসের ড্রাইভার থানায় মামলা করেছে। কোতোয়ালি মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. শাখাওয়াত হোসেন জানান, বিএম কলেজের ছাত্ররা বাসে হামলা ভাংচুর চালিয়েছিল। তারা খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। তবে কাউকে আটক করা সম্ভব হয়নি। এই ঘটনায় শনিবার একটি এজাহার থানায় জমা পড়েছে। তবে সন্ধ্যা পর্যন্ত রেকর্ড হয়নি।

Print Friendly, PDF & Email